মিস্ট এডমিশন সার্কুলার ২০২৪
মিস্ট ভর্তি প্রস্তুতি
মিস্ট প্রশ্নব্যাঙ্ক

মিস্ট ভর্তি পরীক্ষা ও এমআইএসটি ভর্তি সার্কুলার ২০২৪

Author
26/01/2024Chorcha
মিস্ট ভর্তি পরীক্ষা ও এমআইএসটি ভর্তি সার্কুলার ২০২৪

কেমন হওয়া উচিত মিস্ট ভর্তি পরীক্ষার প্রস্তুতি? মিস্ট প্রশ্নব্যাংক সলভ করা কতটা কার্যকরী?

আজকে কথা বলবো আরেকটি বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে, যেটার বাংলাদেশে অবস্থান ৫ম, আরেকটু হিন্ট দেই, এটার নামের মধ্যে মিলিটারি আছে। কি ধরতে পেরেছো? হ্যা, আজকে কথা বলবো মিলিটারি ইনস্টিটিউট অফ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি নিয়ে।

মিলিটারি ইনস্টিটিউট অফ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি;সংক্ষেপে এমআইএসটি) বাংলাদেশের একটি সরকারি প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়, যা মিরপুর সেনানিবাস-এ অবস্থিত। এটি প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের একটি স্বায়ত্তশাসিত সংস্থা যা প্রকৌশলে উচ্চশিক্ষা প্রদান করে থাকে। স্বাধীনতার পর বাংলাদেশ মিলিটারী একাডেমিতে বঙ্গবন্ধু আশাবাদ ব্যক্ত করেন, একদিন উন্নত বিশ্বের গবেষক ও প্রকৌশলীগণ বাংলাদেশে আসবেন। তিনি প্রথম বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর জন্য একটি অত্যাধুনিক প্রকৌশল শিক্ষা ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের স্বপ্ন দেখেছিলেন।

১৯৯৮ সালের ১৯ এপ্রিল তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেই স্বপ্নকল্পের বাস্তব রূপায়ণে এবং বাংলাদেশ সামরিক বাহিনীর কারিগরি উন্নয়নকল্পে ঢাকাস্থ মিরপুর সেনানিবাসে বাংলাদেশ সামরিক বাহিনীর অফিসারদের বিএসসি প্রকৌশল অধ্যয়ন করার জন্য এমআইএসটির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন ও প্রতিষ্ঠা করেন। প্রাথমিক অবস্থায় পুরকৌশল, তড়িৎ ও ইলেক্ট্রনিক প্রকৌশল, যন্ত্র প্রকৌশল এবং কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগ থেকে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালিত হলেও পরবর্তীতে অন্যান্য নতুন প্রকৌশল বিভাগ খোলা হয়।

মিস্ট ক্যাম্পাস বিল্ডিংচিত্রঃ মিস্ট ক্যাম্পাস





মিলিটারি ইনস্টিটিউট অফ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি (MIST) পরিচিতি

মিলিটারি ইনস্টিটিউট অফ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি (সংক্ষেপে এমআইএসটি) বাংলাদেশের একটি গুরুত্বপূর্ণ সরকারি প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়, যা মিরপুর সেনানিবাসে অবস্থিত। ১৯৯৮ সালে বাংলাদেশ সামরিক বাহিনীর অফিসারদের বাস্তবায়নের লক্ষ্যে এই প্রতিষ্ঠানটি প্রতিষ্ঠা করা হয়। এমআইএসটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অংশ হিসেবে ২০০৮ সালের পূর্বে প্রতিষ্ঠিত ছিল, এরপর থেকে বিশেষভাবে সামরিক বাহিনীর অফিসারদের প্রযুক্তি ও প্রকৌশল শেখা দেওয়ার জন্য একটি প্রধান কেন্দ্র হিসেবে পরিণত হয়েছে।

এমআইএসটি শুরুতে পুরকৌশল, তড়িৎ, ইলেক্ট্রনিক ও যোগাযোগ প্রকৌশল, যন্ত্র প্রকৌশল এবং কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগ থেকে শুরু হয়েছিল, কিন্তু সাময়িকভাবে এটি নতুন বিভাগের সৃষ্টি করেছে এবং বর্তমানে অন্যান্য নতুন বিভাগও যোগ হয়েছে। ২০০২ সাল থেকে এটি বেসামরিক শিক্ষার্থীদের জন্য ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ প্রদান করে এবং এখানে অধ্যয়ন করার সুযোগ দেওয়া হয়।

এমআইএসটি বর্তমানে ৪ টি অনুষদে এবং ১২ টি প্রকৌশল এবং স্থাপত্য বিভাগ রয়েছে। প্রকৌশলে বিএসসি, এমএসসি/এম. ইঞ্জিনিয়ারিং, এম. ফিল. এবং পিএইচডি ডিগ্রী প্রদান করা হয়। এমআইএসটি প্রকৌশল শিক্ষায় উৎকর্ষ সাধনের জন্য অত্যাধুনিক ল্যাবরেটরি এবং গবেষণাকেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করেছে, যা বাংলাদেশ সরকার এমআইএসটিতে একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হিসেবে অভিজ্ঞান করে।

২০০৮ সালের আগে এমআইএসটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তর্ভুক্ত ছিল। বর্তমানে এটি বিইউপি অধিভুক্ত। পূর্বে শুধু সামরিক বাহিনীর অফিসারদের অংশগ্রহণ থাকলেও ২০০২ সাল থেকে বেসামরিক শিক্ষার্থীরা এখানে ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে অধ্যয়ন করার সুযোগ পায়। এমআইএসটিতে বর্তমানে ৪ টি অনুষদে ১২ টি প্রকৌশল এবং স্থাপত্য বিভাগ রয়েছে। বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং, এমএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং /এম. ইঞ্জিনিয়ারিং, এম. ফিল. এবং পিএইচডি ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রী প্রদান করে থাকে এমআইএসটি। এর কর্তৃপক্ষ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এবং অধিক্ষক (পরিচালক বোর্ড) সামরিক বাহিনী (সেনা, নৌ, বিমান বাহিনী)।

১৩০ জন পিএইচডি হোল্ডারসহ মোট ৩৫০ জন শিক্ষক রয়েছেন। ২০ জন শিক্ষক পিএইচডি করছেন। আন্ডারগ্র্যাজুয়েট লেভেলে বর্তমান ছাত্রসংখ্যা ৩৪০০+, পোস্টগ্র্যাজুয়েট লেভেলে ছাত্রসংখ্যা ৬০০+ এবং পিএইচডি লেভেলে ছাত্রসংখ্যা ৫০ জন। গ্র্যাজুয়েট ইঞ্জিনিয়ার সংখ্যা (২০২২) সাল পর্যন্ত ৭২০০+ জন। প্রকৌশল শিক্ষায় উৎকর্ষ সাধনের জন্য অত্যাধুনিক ল্যাবরেটরি এবং গবেষণাকেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করেছে বাংলাদেশ সরকার এমআইএসটিতে। বর্তমানে সকল ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপার্টমেন্ট বাংলাদেশ প্রকৌশল ও কারিগরি এক্রেডিটেশন বোর্ড (বি.এ.ই.টি.ই), ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ (আই.ই.বি) হতে সনদপ্রাপ্ত।

ভাইয়া, মিস্ট (MIST) কী? সাধারণ তথ্য

নাম

মিলিটারি ইনস্টিটিউট অফ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি

সংক্ষিপ্ত

MIST

নীতিবাক্য

অগ্রগতির জন্য প্রযুক্তি

টাইপ

পাবলিক

বিশেষীকরণ

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

র‍্যাঙ্কিং

05

বিশ্ব র‍্যাঙ্কিং

6383

ওয়েবসাইট

www.mist.ac.bd

ভর্তির ওয়েবসাইট

admission.mist.ac.bd

অনুষদ

04

বিভাগসমূহ

16

ইনস্টিটিউট

01

মোট ছাত্র

2018 সালের 3000 (প্রায়)

প্রতিষ্ঠিত

19 এপ্রিল 1998

চ্যান্সেলর

বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি

উপাচার্য

মেজর জেনারেল এম.ডি. আবুল খায়ের

ক্যাম্পাস

50 একর

অবস্থান

মিরপুর সেনানিবাস, ঢাকা-১২১৬, বাংলাদেশ

মিলিটারি ইনস্টিটিউট অফ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি এর ইতিহাসঃ

মিলিটারি ইনস্টিটিউট অফ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি (এমআইএসটি) যাত্রা শুরু করেছিল ১৯ এপ্রিল, ১৯৯৮ সালে। এই প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর কারিগরি ইনস্টিটিউট হিসেবে উদ্দীপ্ত হয়েছিল, এবং তার মৌলিক উদ্দেশ্য ছিল সামরিক বাহিনীর অফিসারদের জন্য উন্নত ও আধুনিক প্রশিক্ষণ প্রদান করা। এই ইনস্টিটিউটটি প্রতিষ্ঠার জন্য গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং তার দক্ষ নেতৃত্বের অবদান ছিল।

মিলিটারি ইনস্টিটিউট অফ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি, অথচ MIST, ঢাকা শহরের উত্তর-পশ্চিম অংশে অবস্থিত, এবং মিরপুর সেনানিবাস হল এই ইনস্টিটিউটের আসন। মিরপুর সেনানিবাস বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর 'শিক্ষার গ্রাম' হিসেবে পরিচিত, এবং এটি সামরিক/বেসামরিক ছাত্র ও পেশাজীবীদের জ্ঞানের কেন্দ্র হিসেবে সুপরিচিত।

প্রথম একাডেমিক প্রোগ্রাম ৩১ জানুয়ারী, ১৯৯৯ সালে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং (CE) এর প্রথম ব্যাচে সাথে চালু হয়েছিল। এরপর ২০০০-২০০১ শিক্ষাবর্ষ থেকে কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (সিএসই) প্রোগ্রাম শুরু হয়েছিল এবং তারপরে ২০০২-২০০৩ থেকে ইলেকট্রিক্যাল, ইলেকট্রনিক অ্যান্ড কমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং (EECE) এবং মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং (ME) প্রোগ্রামগুলি শুরু হয়েছিল।

অ্যারোনটিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং (AE) এবং নেভাল আর্কিটেকচার এবং মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং (NAME) প্রোগ্রাম যথাক্রমে ২০০৮-২০০৯ এবং ২০১২-২০১৩ থেকে শুরু হয়েছিল। এছাড়াও, ২০১৪-২০১৫ সাল থেকে চারটি নতুন বিভাগ তাদের একাডেমিক সেশন শুরু করেছে যেমন নিউক্লিয়ার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (NSE), বায়োমেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং (BME), আর্কিটেকচার (আর্ক) এবং সিভিল, এনভায়রনমেন্টাল, ওয়াটার রিসোর্সেস অ্যান্ড কোস্টাল ইঞ্জিনিয়ারিং (EWCE)। ইন্ডাস্ট্রিয়াল প্রোডাকশন ইঞ্জিনিয়ারিং (আইপিই) এবং পেট্রোলিয়াম অ্যান্ড মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারিং (পিএমই) ২০১৬-২০১৭ থেকে শুরু হয়েছে।

বিজ্ঞান, প্রকৌশল, প্রযুক্তি এবং প্রকৌশল ব্যবস্থাপনার বিভিন্ন শাখায় ব্যাপক শিক্ষা প্রদান এবং গবেষণা পরিচালনা করা।

বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন এবং বৈশ্বিক চাহিদা মেটাতে উচ্চ নৈতিক ও নৈতিক মূল্যবোধসম্পন্ন প্রযুক্তিগতভাবে উন্নত বুদ্ধিজীবী নেতা এবং পেশাদারদের তৈরি করুন।

একাডেমিয়া এবং শিল্পের সাথে ক্রমাগত যোগাযোগের জন্য জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সাথে সহযোগিতামূলক গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনা করুন।

ব্যবহারিক জ্ঞান বৃদ্ধি এবং সমাজের টেকসই উন্নয়নে অবদান রাখার জন্য ব্যক্তিগত সহ সরকারী, বেসরকারী এবং স্বায়ত্তশাসিত সংস্থাকে পরামর্শ, উপদেষ্টা, পরীক্ষা এবং অন্যান্য সম্পর্কিত পরিষেবা প্রদান করা।


নিম্নলিখিত ইঞ্জিনিয়ারিং প্রোগ্রামগুলি বর্তমানে এমআইএসটি-তে চালু আছে

  • সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং

  • কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং

  • ইলেকট্রিক্যাল, ইলেকট্রনিক এবং কমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং

  • শিল্প উৎপাদন এবং প্রকৌশল

  • যন্ত্র প্রকৌশল

  • বৈমানিক প্রকৌশল

  • নেভাল আর্কিটেকচার অ্যান্ড মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং

  • এনভায়রনমেন্টাল, ওয়াটার রিসোর্স এবং কোস্টাল ইঞ্জিনিয়ারিং

  • নিউক্লিয়ার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং

  • জৈব চিকিৎসা প্রকৌশল

  • স্থাপত্য

  • পেট্রোলিয়াম এবং মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারিং


এমআইএসটি তে বর্তমানে ১২ টি বিভাগ রয়েছে। এগুলো হলোঃ

ক্রমিক নং 

বিভাগ

প্রবর্তনের বছর

আসন সংখ্যা 

পুরকৌশল বিভাগ

১৯৯৯

১২০

কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগ

২০০১

১২০

তড়িৎ, কমিউনিকেশন ও ইলেকট্রনিক কৌশল বিভাগ

২০০৩

১২০

যন্ত্রকৌশল বিভাগ

২০০৩

১২০

অ্যারোনটিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ

২০০৯

১০০

নৌযান ও নৌযন্ত্র কৌশল বিভাগ

২০১৩

৪০

স্থাপত্য বিভাগ

২০১৫

২৫

জৈব চিকিৎসা প্রকৌশল বিভাগ

২০১৫

৪০

পারমাণবিক বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগ

২০১৫

৪০

১০

পরিবেশ, পানি সম্পদ এবং উপকূলবর্তী প্রকৌশল বিভাগ

২০১৫

৬০

১১

ইন্ডাস্ট্রিয়াল প্রোডাকশন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ

২০১৬

৫০

১২

পেট্রোলিয়াম ও খনন প্রকৌশল বিভাগ

২০১৬

২৫

সর্বমোট:

৮৬০


অতিরিক্ত তথ্য

ডক্টরাল ছাত্র

558

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কর্মচাারি

348

প্রশাসনিক কর্মকর্তা

594

পুরুষ ছাত্রদের জন্য হল

01

মহিলা ছাত্রদের জন্য হল

01

ভাইয়া, কেন MIST এ পড়বো?

MIST একটি প্রগতিশীল ইনস্টিটিউট যা উদ্ভাবনী গবেষণায় ফোকাস করে যার বাস্তব প্রভাব রয়েছে এবং আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত।

এটি একটি প্রগতিশীল ইনস্টিটিউট যা উদ্ভাবনী গবেষণায় ফোকাস করে যার বাস্তব প্রভাব রয়েছে এবং আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত। MIST-এ, শিক্ষার্থীরা আমাদের সবকিছুর কেন্দ্রে থাকে। কর্মজীবন-প্রস্তুত স্নাতক তৈরি করা আমরা কী শেখাই এবং কীভাবে তা শেখাই তা জানায়। উচ্চ-মানের শিক্ষাদানের প্রতি আমাদের প্রতিশ্রুতি, যা আমাদেরকে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে শিক্ষার নেতা করে তোলে।তারা তোমাকে বিস্তৃত কোর্সের মাধ্যমে আপনার অধ্যয়ন এবং কর্মজীবনের লক্ষ্যে পৌঁছাতে সাহায্য করবে। আধুনিক ক্যাম্পাসে একটি উত্তেজনাপূর্ণ এবং গতিশীল অভিজ্ঞতা উপভোগ করবে।

মিস্ট ক্যাম্পাস বৃষ্টিতে

সংক্ষেপে, MIST এর প্রধান বৈশিষ্ট্যগুলি হল:

  • শ্রেণীকক্ষে সর্বোত্তম সম্ভাব্য স্ক্রীনিং ইন্টারেক্টিভ সেশনের জন্য কঠোর ভর্তি এবং নির্বাচন প্রক্রিয়া।

  • নিয়মিত অতিথি বক্তৃতা এবং শিক্ষামূলক পরিদর্শন।

  • সময়োপযোগীতা, প্রতিশ্রুতি এবং নিরবচ্ছিন্ন পাঠ্যক্রমের সংস্কৃতি।

  • আউটসোর্সিং এর মাধ্যমে দক্ষ অনুষদ নির্বাচনের ক্ষেত্রে নমনীয়তা।

  • ভাল চিন্তাভাবনা এবং ক্রমাগত প্রতিক্রিয়া এবং মূল্যায়ন সিস্টেম।

  • উদ্ভাবনী পদ্ধতির মাধ্যমে কার্যকর শিক্ষাদান।

  • কাজের প্রশিক্ষণের জন্য শিল্প সংযুক্তি।

  • আচরণবিধি এবং পোষাক কোডের উপর জোর দেওয়া।

  • সফল নেতার সম্ভাব্য সকল গুণাবলী সহ শিক্ষার্থীদের ভালো মানুষ হিসেবে গড়ে তোলার দিকে মনোনিবেশ করুন।

  • শান্ত, দূষণমুক্ত এবং নিরাপদ ক্যাম্পাস জীবন।




ভাইয়া, MIST নিয়ন্ত্রন করে কারা?

MIST কাউন্সিল

মাননীয় মন্ত্রী, শিক্ষা মন্ত্রণালয় - চেয়ারম্যান
সেনাপ্রধান, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী - ভাইস চেয়ারম্যান
চিফ অব নৌ স্টাফ, বাংলাদেশ নৌবাহিনী - ভাইস চেয়ারম্যান
চীফ অব এয়ার স্টাফ, বাংলাদেশ বিমান বাহিনী - ভাইস চেয়ারম্যান

প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার, সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ; সচিব, এমওডি; ভিসি, বিইউপি; ইঞ্জিনিয়ার ইন চিফ, এএইচকিউ; কমান্ড্যান্ট, এমআইএসটি; অধ্যাপক, ঢাবি; অধ্যাপক, বুয়েট; কমান্ড্যান্ট, বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমী; কমান্ড্যান্ট, বাংলাদেশ নেভাল একাডেমী; কমান্ড্যান্ট, বাংলাদেশ বিমান বাহিনী একাডেমী; অতিরিক্ত সচিব (বিশ্ববিদ্যালয়), শিক্ষা মন্ত্রণালয়; অতিরিক্ত সচিব, অর্থ মন্ত্রণালয়; অতিরিক্ত সচিব, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়; ডিন, সিই অনুষদ; ডিন, ইসিই অনুষদ; ডিন, ME অনুষদ; ডিন, বিজ্ঞান অনুষদ এবং এমআইএসটি-এর ইঞ্জিঃ সদস্যরা

কর্নেল স্টাফ, এমআইএসটি - সচিব

MIST এর পরিচালনা পর্ষদ

কমান্ড্যান্ট, এমআইএসটি এবং ইঞ্জিনিয়ার ইন চিফ, এএইচকিউ - চেয়ারম্যান (যিনি সিনিয়র হন)

অধ্যাপক, ঢাবি; অধ্যাপক, বুয়েট; অতিরিক্ত সচিব (বিশ্ববিদ্যালয়), শিক্ষা মন্ত্রণালয়; অতিরিক্ত সচিব, এমওডি; অতিরিক্ত সচিব, অর্থ মন্ত্রণালয়; নিবন্ধন, BUP; প্রশিক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, এএফডি; পরিচালক, সামরিক প্রশিক্ষণ অধিদপ্তর, এএইচকিউ; পরিচালক নৌ প্রশিক্ষণ, NHQ; পরিচালক এয়ার ট্রেনিং, এয়ার সদর দপ্তর; যুগ্ম সচিব, ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়; ডিন, বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমী; ডিন, বাংলাদেশ নেভাল একাডেমী; ডিন, বাংলাদেশ বিমান বাহিনী একাডেমী; পরিচালক গবেষণা ও উন্নয়ন; পরিচালক অ্যাডমিন; ডিন, সিই অনুষদ; ডিন, ইসিই অনুষদ; ডিন, ME অনুষদ; ডিন, বিজ্ঞান অনুষদ এবং এমআইএসটি-এর ইঞ্জিঃ সদস্যরা

কর্নেল স্টাফ, এমআইএসটি - সচিব

MIST এর একাডেমিক কাউন্সিল

কমান্ড্যান্ট, এমআইএসটি - চেয়ারম্যান

অধ্যাপক, ঢাবি; অধ্যাপক, বুয়েট; অতিরিক্ত সচিব, শিক্ষা মন্ত্রণালয়; অতিরিক্ত সচিব, এমওডি; কলেজ পরিদর্শক, বিইউপি; ডিন, সিই অনুষদ; ডিন, ইসিই অনুষদ; ডিন, ME অনুষদ; ডিন, বিজ্ঞান অনুষদ এবং ইঞ্জি. পরিচালক গবেষণা ও উন্নয়ন; পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক; পরিচালক ছাত্র কল্যাণ; কর্নেল স্টাফ; প্রফেসর ফ্যাকাল্টি অফ সিই; ইসিই অনুষদের অধ্যাপক; CE বিভাগের প্রধান, CSE বিভাগ, EECE বিভাগ, ME বিভাগ, AE বিভাগ, NAME বিভাগ, খিলান বিভাগ, EWCE বিভাগ, NSE বিভাগ, BME বিভাগ, PME বিভাগ, IPE বিভাগ এবং MIST এর বিজ্ঞান ও মানবিক বিভাগ; ডিন (ইঞ্জিনিয়ারিং ফ্যাকাল্টি), বিএমএ; ডিন (ইঞ্জিনিয়ারিং ফ্যাকাল্টি), বিএনএ; ডিন (ইঞ্জিনিয়ারিং ফ্যাকাল্টি), বাফা; প্রশিক্ষণ অধিদপ্তরের প্রতিনিধি, এএফডি; সামরিক প্রশিক্ষণ অধিদপ্তরের প্রতিনিধি, এএইচকিউ; নৌ প্রশিক্ষণ অধিদপ্তরের প্রতিনিধি, এনএইচকিউ; এয়ার ট্রেনিং ডিরেক্টরেটের প্রতিনিধি, এয়ার সদর দপ্তর - সদস্যরা


MIST এ আবাসিক হল সমূহ

ওসমানী হল, এম আই এস টি

এমআইএসটিতে ছাত্রদের জন্য "ওসমানী হল" রয়েছে। ছেলেদের জন্য মেল উইং এবং মেয়েদের জন্য ফিমেল উইং। প্রত্যেকটি উইং এ ২৬০টি করে মোট ৫২০ টি আসন রয়েছে। আর শিক্ষকদের জন্য "শাপলা" ও "পলাশ" নামে ২টি আবাসিক ভবন রয়েছে।

MIST এ সংগঠনসমূহ

  • এমআইএসটি কম্পিউটার ক্লাব (MCC)

  • এমআইএসটি রোবটিক্স ক্লাব (MRC)

  • এমআইএসটি ডিবেটিং সোসাইটি (MISTDS)

  • এমআইএসটি ফটোগ্রাফিক সোসাইটি (MISTPS)

  • এমআইএসটি লুনাবটিক্স ক্লাব

MIST ভর্তি 2023-24 বিশদ

  • আবেদন শুরু: 27 ডিসেম্বর, 2023

  • আবেদনের শেষ তারিখ: 17 জানুয়ারী, 2024

  • যোগ্য প্রার্থীদের তালিকা: 5 ফেব্রুয়ারি, 2024

  • ভর্তির ওয়েবসাইট: mist.teletalk.com.bd

  • ভর্তি পরীক্ষার তারিখ: 17 ফেব্রুয়ারি, 2024

  • ভর্তি কেন্দ্র: ঢাকা (বিশদ বিবরণ MIST ওয়েবসাইটে প্রচার করা হবে)


MIST এ আবেদন করার যোগ্যতা

ক এসএসসি (বা সমমান)। বিজ্ঞান গ্রুপে 2019 এবং 2020 সালে পরীক্ষায় উত্তীর্ণ আবেদনকারীরা 5.0 স্কেলে ন্যূনতম জিপিএ 4.00 (চতুর্থ বিষয় ছাড়া) পেয়েছিলেন।

খ. এইচএসসি পরীক্ষা (বা সমমান)2021 এবং 2022 সালে পাস করা আবেদনকারীরা (2023 সালে প্রকাশিত ফলাফল) চারটি বিষয়ে (গণিত, পদার্থবিদ্যা, রসায়ন এবং ইংরেজি) ন্যূনতম মোট গ্রেড পয়েন্ট 17 পেয়েছে।

গ. GCE ('O' এবং 'A' স্তর বা সমতুল্য)

(1) GCE 'O' লেভেলে গণিত, পদার্থবিদ্যা, রসায়ন এবং ইংরেজি সহ পাঁচটি বিষয়ে ন্যূনতম 'B' গ্রেড নিয়ে 2021 এবং 2022 সালে পাস করা আবেদনকারীরা । (2) GCE 'A' লেভেলে গণিত, পদার্থবিদ্যা এবং রসায়নে ন্যূনতম দুটি 'B' গ্রেড এবং একটি 'C' গ্রেড নিয়ে 2021 এবং 2022 সালে পাস করা আবেদনকারীরা । d বায়োমেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে আগ্রহী আবেদনকারীদের অবশ্যই এইচএসসি বা সমমানের স্তরে জীববিজ্ঞান থাকতে হবে যার ন্যূনতম গ্রেড পয়েন্ট 'A-'/ GCE 'A' বা ন্যূনতম গ্রেড পয়েন্ট 'C' এর সমতুল্য স্তরে থাকতে হবে।

MIST এ লিখিত পরীক্ষার জন্য সংক্ষিপ্ত তালিকা

সংক্ষিপ্ত তালিকাভুক্ত প্রার্থীদের লিখিত পরীক্ষায় উপস্থিত হতে দেওয়া হবে। এই প্রার্থীদের মধ্যে রয়েছে: 2021 এবং 2022 সালে HSC/সমমান পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীরা । খ. আবেদনকারীদের দুটি পৃথক তালিকা (একটি চলতি বছরের জন্য এবং অন্যটি গত বছরের জন্য) শুধুমাত্র লিখিত ভর্তি পরীক্ষায় উপস্থিত হওয়ার জন্য নির্বাচনের উদ্দেশ্যে তৈরি করা হবে। গ. সংক্ষিপ্ত তালিকাভুক্ত প্রার্থীদের নাম 09 মার্চ 2023 অনলাইনে প্রকাশ করা হবে।

বিগত বছরের MIST এডমিশন প্রশ্নব্যাংক এর উপর সর্বোচ্চ প্র‍্যাক্টিস থাকা জরুরি। এরজন্য অন্যতম সেরা একটি মাধ্যম হতে পারে চর্চা।


এমআইএসটি ভর্তির ফর্ম


MIST এ কিভাবে আবেদন করতে হবে

শুধুমাত্র MIST ওয়েবসাইট (www.mist.ac.bd) এর মাধ্যমে অনলাইনে আবেদন জমা দিতে হবে। আবেদনপত্র জমা দেওয়ার পর, আবেদনকারী অনলাইনে একটি ইউজার আইডি পাবেন। সেই ইউজার আইডি দিয়ে, আবেদনকারীকে টেলি-টক প্রি-পেইড মোবাইল ফোন থেকে 16222 নম্বরে এসএমএস পাঠাতে হবে । আবেদনের ফি ইউনিট A এর জন্য 1000 টাকা(এক হাজার ) এবং ইউনিট B এবং ইউনিট (A+B) এর জন্য 1200 (এক হাজার দুইশত) টাকা । ই-আবেদন এবং ফি জমা দেওয়ার বিস্তারিত নির্দেশাবলী MIST ওয়েবসাইটে দেওয়া আছে। উভয়ই সফলভাবে সম্পন্ন হলে, আবেদনকারী এসএমএসের মাধ্যমে একটি পাসওয়ার্ড পাবেন যা ব্যবহার করে একজন যোগ্য আবেদনকারী অ্যাডমিট কার্ড ডাউনলোড করতে পারবেন।


MIST এ কোটা আবেদনকারীদের জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

মুক্তিযোদ্ধা:

সংশ্লিষ্ট বাংলাদেশ গেজেট, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অস্থায়ী সার্টিফিকেট, লালমুক্তিবার্তা, ভারতীয় তালিকা, এবং মুক্তিযোদ্ধার সাথে সম্পর্কের সনদসহ বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের একটি সার্টিফিকেট প্রদান করুন।

মিলিটারি ওয়ার্ড (সামরিক কর্মীদের সন্তান):

পরিবেশন করা: সংস্থার প্রধান বা অনুমোদিত কর্মকর্তাদের কাছ থেকে একটি প্রশংসাপত্র প্রদান করুন।

অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা:

CORO, নেভাল সেক্রেটারিয়েট বা এয়ার সেক্রেটারিয়েট থেকে একটি সার্টিফিকেট প্রদান করুন।

সেনা/নৌ/বিমান বাহিনীর JCO/OR/NC(E):

সংশ্লিষ্ট অস্ত্র/সেবার রেকর্ড অফিস/ড্রাফটিং অফিস থেকে একটি সার্টিফিকেট বা সার্ভিস রেকর্ড বুক প্রদান করুন।

উপজাতি:

স্থানীয় উপজেলা চেয়ারম্যান কর্তৃক প্রদত্ত এবং জেলা প্রশাসক কর্তৃক পাল্টা স্বাক্ষরিত একটি শংসাপত্র প্রদান করুন।

সমস্ত কোটা আবেদনকারীদের অবশ্যই কোটা প্রমাণীকরণ/যাচাইয়ের জন্য 22 ফেব্রুয়ারি, 2021 এর মধ্যে MIST ভর্তি অফিসে উল্লিখিত মূল নথি (হার্ডকপি) জমা দিতে হবে।

GCE আবেদনকারীদের জন্য, ট্রান্সক্রিপ্ট/শংসাপত্রের সত্যায়িত কপি (হার্ডকপি) অবশ্যই প্রমাণীকরণ/যাচাইয়ের জন্য MIST ভর্তি অফিসে জমা দিতে হবে।
ভর্তি প্রক্রিয়ার যেকোনো পর্যায়ে অসম্পূর্ণ বা মিথ্যা তথ্যের জন্য প্রার্থীরা অযোগ্য বলে বিবেচিত হবে।


MIST এ টাকা দেবার নির্দেশনা

আপনি সফলভাবে আবেদন করার পর, আপনি অনলাইনে একটি ইউজার আইডি পাবেন। পর্যাপ্ত ব্যালেন্স সহ একটি টেলি-টক প্রিপেইড মোবাইল থেকে 16222 নম্বরে একটি SMS পাঠাতে সেই USER ID ব্যবহার করুন৷ আবেদন ফি ইউনিট A এর জন্য 1000 টাকা এবং ইউনিট B এবং ইউনিট (A+B) এর জন্য 1200 টাকা। ই-আবেদন এবং ফি জমা দেওয়ার বিস্তারিত নির্দেশাবলী MIST ওয়েবসাইটে রয়েছে। উভয়ই হয়ে গেলে, আপনি SMS এর মাধ্যমে একটি পাসওয়ার্ড পাবেন। আপনার অ্যাডমিট কার্ড ডাউনলোড করতে এই পাসওয়ার্ড ব্যবহার করুন।


এমআইএসটি অ্যাডমিট কার্ড ডাউনলোড

বাংলাদেশ এমআইএসটি ভর্তি পরীক্ষা 2023-24-এর জন্য যোগ্য প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। মিলিটারি ইনস্টিটিউট অফ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি (MIST) 2024-এর অ্যাডমিট কার্ডও পাওয়া যাচ্ছে। শুধুমাত্র সংক্ষিপ্ত তালিকায় থাকা প্রার্থীরাই প্রবেশপত্র ডাউনলোড করতে পারবেন। যোগ্য প্রার্থীরা প্রবেশপত্র ডাউনলোডের জন্য একটি এসএমএস বিজ্ঞপ্তি পাবেন এবং তারপরে তারা এটি ডাউনলোড করতে পারবেন।

প্রবেশপত্র ডাউনলোড করতে, প্রার্থীদের তাদের ব্যবহারকারী আইডি এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগ ইন করতে হবে। অ্যাডমিট কার্ডে ভর্তি পরীক্ষার তারিখ, সময়, পরীক্ষার কেন্দ্রের নাম এবং ঠিকানা সম্পর্কে তথ্য রয়েছে।

mist.teletalk.com.bd ভিজিট করুন অথবা MIST অ্যাডমিট কার্ড ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন।

নিশ্চিত করুন যে অ্যাডমিট কার্ডটি A4 আকারের কাগজে রঙিন মুদ্রিত হয়েছে। পরীক্ষার বিস্তারিত নির্দেশনা প্রবেশপত্রে দেওয়া আছে। ভর্তি পরীক্ষার তারিখ পর্যন্ত প্রবেশপত্র একাধিকবার ডাউনলোড করা যাবে।

MIST এ মার্কস বিতরণ

কোন বহুনির্বাচনী প্রশ্ন (MCQ) থাকবে না। প্রশ্ন ইংরেজি ও বাংলা উভয় ভাষায় হবে এবং আবেদনকারীরা ইংরেজি বা বাংলায় উত্তর দিতে পারবেন। উভয় ইউনিটের জন্য মার্ক বিতরণ নিম্নরূপ:

হতে

ইউনিট

বিষয়

চিহ্ন

মন্তব্য

1.

ইউনিট A (ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড আর্কিটেকচার)

অংক

80

মোট নম্বর: 100
পরীক্ষার সময়কাল: 2 ঘন্টা

2

পদার্থবিদ্যা

60

3

রসায়ন

40

4

ইংরেজি

20

5

ইউনিট বি (স্থাপত্য)

অঙ্কন এবং স্থাপত্য সম্পর্কিত বিষয়

100

মোট নম্বর: 200 (A) + 100 (B)
পরীক্ষার সময়কাল: (3+ 2) ঘন্টার মধ্যে বিরতি সহ

বিগত বছরের MIST এডমিশন প্রশ্নব্যাংক এর উপর সর্বোচ্চ প্র‍্যাক্টিস থাকা জরুরি। এরজন্য অন্যতম সেরা একটি মাধ্যম হতে পারে চর্চা।

খ. SSC/HSC/সমমানের ফলাফলের জন্য কোন মার্ক বরাদ্দ নেই। মেধা তালিকা শুধুমাত্র লিখিত পরীক্ষার ভিত্তিতে প্রস্তুত করা হবে । লিখিত পরীক্ষায় ন্যূনতম যোগ্যতার নম্বর 40% ইউনিট A এবং B ইউনিট উভয়ের জন্য।

2021 সালে HSC পাশ করা প্রার্থীদের লিখিত পরীক্ষা থেকে পাঁচ শতাংশ (5%) নম্বর কাটা হবে । তারপরে, ভর্তি এবং বিভাগ বরাদ্দের জন্য একটি সম্মিলিত মেধা তালিকা (প্রার্থীরা 2022 এবং 2021 সালে HSC পাস করেছে) প্রস্তুত করা হবে।

মোট মার্কস: 100 (ইউনিট A) + 100 (ইউনিট B)

পরীক্ষার সময়কাল: A ইউনিটের জন্য 2 ঘন্টা, B ইউনিটের জন্য 2 ঘন্টা বিরতি সহ

এসএসসি / এইচএসসি / সমমানের ফলাফলের জন্য কোন মার্ক বরাদ্দ নেই। মেধা তালিকা শুধুমাত্র লিখিত পরীক্ষার উপর ভিত্তি করে হবে। লিখিত পরীক্ষায় ন্যূনতম যোগ্যতার নম্বর হল ইউনিট A এবং B ইউনিট উভয়ের জন্য 40%।

2021 সালে HSC পাশ করা প্রার্থীদের জন্য একটি 5% মার্ক কেটে নেওয়া হবে৷ 2022 এবং 2021 সালে HSC পাশ করা প্রার্থীদের জন্য একটি সম্মিলিত মেধা তালিকা ভর্তি এবং বিভাগ বরাদ্দের জন্য প্রস্তুত করা হবে৷

ভর্তি/একাডেমিক প্রক্রিয়ার যেকোনো পর্যায়ে কোনো অসম্পূর্ণ/মিথ্যা তথ্য পাওয়া গেলে ভর্তি বাতিল করা হবে।

আরও তথ্যের জন্য, MIST ওয়েবসাইট ( www.mist.ac.bd ) দেখুন বা ভর্তি হেল্প ডেস্ক (01769024090/01769024094) এ যোগাযোগ করুন।

আসন পরিকল্পনা

বাংলাদেশ মিলিটারি ইনস্টিটিউট অফ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি (MIST) ভর্তি পরীক্ষা 2024-এর জন্য, আসন পরিকল্পনা অ্যাডমিট কার্ডে রয়েছে। আপনার কেন্দ্রের নাম, আসনের অবস্থান এবং ঠিকানা দেখতে অ্যাডমিট কার্ড ডাউনলোড করুন। পরীক্ষার 45 মিনিট আগে পরীক্ষা কেন্দ্রে পৌঁছান। অ্যাডমিট কার্ডে পরীক্ষার কেন্দ্রের অবস্থান সহ একটি মানচিত্র অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। ভর্তি পরীক্ষার জন্য কোনো অতিরিক্ত আসন পরিকল্পনা প্রকাশ করা হবে না।

MIST এ ভর্তি প্রক্রিয়াঃ

স্বাস্থ্য পরিক্ষা:

নির্বাচিত সিভিল প্রার্থীদের সাময়িকভাবে MIST মেডিকেল সেন্টারে মেডিকেল চেক-আপ করাতে হবে। তাদের প্রস্রাব, রক্ত ​​এবং রক্তের গ্রুপিং পরীক্ষার রিপোর্ট দিতে হবে। প্রার্থীরা ভর্তির জন্য শারীরিকভাবে উপযুক্ত কিনা MIST মেডিকেল কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নেবে।

ভর্তি:

ভর্তির জন্য চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত প্রার্থীদের অবশ্যই এই নিয়মগুলি অনুসরণ করতে হবে:

একটি নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ভর্তির আনুষ্ঠানিকতা সম্পূর্ণ করুন।

• নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ভর্তির আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করতে ব্যর্থ হলে নির্বাচন বাতিল করা হবে।

• মেধার ভিত্তিতে ওয়েটিং লিস্ট প্রস্তুত করা হবে।

• প্রোগ্রাম শুরু হওয়ার দুই সপ্তাহের মধ্যে ক্লাসে যোগ দিতে ব্যর্থ হলে ভর্তি বাতিল এবং ফি বাজেয়াপ্ত করা হবে।

ভর্তির সময় যেসব কাগজপত্র জমা দিতে হবে:

• এসএসসি এবং সমমানের সার্টিফিকেট এবং মার্কশিটের মূল কপি

• HSC এবং সমমানের সার্টিফিকেট এবং মার্কশিটের মূল কপি

• একটি ক্লাস-১ গেজেটেড অফিসার দ্বারা সত্যায়িত তিনটি সাম্প্রতিক পাসপোর্ট আকারের রঙিন ছবি

• সর্বশেষ প্রতিষ্ঠানের প্রধানের কাছ থেকে চারিত্রিক সনদ

• জাতীয়তা শংসাপত্র বা জন্ম শংসাপত্র বা জাতীয় পরিচয়পত্র

MIST এ বিভাগ বরাদ্দ

মোট শূন্যপদের বিপরীতে ভর্তি পরীক্ষায় পৃথক যোগ্যতার ভিত্তিতে বিভাগ বরাদ্দ করা হবে। ব্যক্তিগত বিভাগ পছন্দ যতদূর সম্ভব অগ্রাধিকার দেওয়া হবে

অভিভাবকের সম্মতি

নির্বাচিত নাগরিক প্রার্থী এবং তাদের পিতামাতা বা অভিভাবকদের অবশ্যই MIST কর্তৃপক্ষ কর্তৃক প্রণীত শর্তাবলী গ্রহণ করে ভর্তির ফর্মে একটি সম্মতি শংসাপত্র প্রদান করতে হবে।

MIST এ ভর্তি/একাডেমিক প্রক্রিয়া বাতিল

অসম্পূর্ণ/মিথ্যা তথ্য পাওয়া গেলে ভর্তি বাতিল করা হবে, অথবা ভর্তি/শিক্ষা প্রক্রিয়ার যেকোনো পর্যায়ে প্রার্থী/শিক্ষার্থীরা ওষুধ পরীক্ষায় ব্যর্থ হলে।

MIST এ পড়াশোনার খরচ:

সরকারি প্রতিষ্ঠান হওয়া সত্তেও প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের অন্তর্ভুক্ত হওয়ায় MIST এর খরচ অন্যান্য পাবলিক ইউনিভার্সিটির চেয়ে কিছুটা বেশি। যেমন ক্যাডেট কলেজগুলোর খরচ অন্যান্য সরকারি কলেজের চেয়ে বেশি। পিতামাতার যেকেউ সরকারি চাকরিজীবী বা অবসরপ্রাপ্ত সরকারি চাকরিজীবী (বেসামরিক এবং সামরিক উভয়ের জন্য প্রযোজ্য) হলে, ভর্তির সময় প্রথম সেমিস্টারের সকল খরচ সহ ৯৩,১৫০ টাকা (মেয়ে) / ৯৩,৫৫০ টাকা (ছেলে) লাগে বর্তমানে। যেখান থেকে গ্রাজুয়েশন কমপ্লিট করলে কিংবা ভর্তি ক্যান্সেল করলে ২৫,০০০ টাকা ফেরত দেয়া হয়।

পিতামাতা প্রাইভেট চাকরিজীবী/অন্য যেকোন পেশার হলে ১,১১,১৫০ টাকা (মেয়ে) / ১,১১,৫৫০ টাকা (ছেলে)৷ ফেরতযোগ্য ২৫,০০০ টাকা।

  • সেমিস্টার ফি: ২২,৬৫০ টাকা/সেমিস্টার (সবার জন্য সমান) (বাকি ৭ সেমিস্টারের জন্য)

  • সর্বমোট খরচ: সকল খরচ সহ চার বছরে গ্র্যাজুয়েশন কমপ্লিট করতে সরকারী চাকুরীজীবির সন্তানদের সর্বমোট ৩,১৪,৬৫০ টাকা (ফিমেল) / ৩,১৫,১৫০ টাকা (মেল)

  • বেসরকারি চাকুরীজীবির সন্তানদের ৩,৮৬,৬৫০ টাকা (ফিমেল) / ৩,৮৭,০৫০ টাকা (মেল) লাগবে।

  • মোট ফেরতযোগ্য টাকা: গ্র্যাজুয়েশন কমপ্লিট করার পর উপরোক্ত চার বছরের নেয়া সকল খরচ অর্থাৎ ৩ লাখ ১৫ হাজার (সরকারি) বা ৩ লাখ ৮৬ হাজার (বেসরকারি) থেকে মোট ফেরত দেয়া হয় (২৫,০০০ + ৬,৫০০ (থিসিস জমা দেয়ার পর) + ৫,৬০০ (ইন্টার্নশিপের সময় দেয়া হয়) = ৩৭,১০০ টাকা।

     

  • হল ফ্যাসিলিটিজ এবং খরচ: ২ হাজার ২০০ টাকা মাসে। (ছেলে/মেয়ে উভয়ই) খাবার খরচ খাওয়ার উপর নির্ভরশীল। ১০০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৩ হাজার টাকা। হলে সিট বরাদ্দ পাবার জন্য হল অফিসে আলাদা আবেদন ফর্ম জমা দিয়ে ভাইভা দিতে হয়। হলে সিট নেয়ার সময় সিকিউরিটি মানি বাবদ ৮,৫০০ টাকা দিতে হয়, যা হলের সিট ছেড়ে দিলে বা গ্রাজুয়েশন কমপ্লিট করলে ফেরত দেয়া হয়। (এক্ষেত্রে মাসিক হল চার্জ পরিশোধের মানি রিসিট গুলো হল অফিসে জমা দিতে হয়)

  • ওসমানী হল: অধিকাংশের মতে বাংলাদেশের সেরা পাবলিক হল, ওসমানী হল এই MIST এ অবস্থিত। ওসমানী হলের অন্যান্য সুব্যবস্থার মধ্যে রয়েছে এটাচ বাথরুম, সেপারেট লিফট, জিমনেসিয়াম, মসজিদ/নামাযের রুম, ইনডোর গেমস ফ্যাসিলিটিজ, কমন রুম, ব্রডব্যান্ড আনলিমিটেড ইন্টারনেট কানেকশন, ওয়াইফাই, ওয়াশিং মেশিন এবং আয়রন, ভেন্ডিং মেশিন ইত্যাদি। ওসমানী হলের টোটাল সিট ক্যাপাসিটি ৫২০ জন (মেল উইং+ফিমেল উইং)। ওসমানী হল ছাড়াও কয়েকটি ছাত্র-ছাত্রী হল রয়েছে (এক্সটেনশন)।

  • হলের খাবারের মেনু: সপ্তাহে একদিন গরু+পোলাও+চাইনিজ ভেজিটেবল (শুক্র/শনিবার), একদিন দুপুরে গরু+ভুনাখিচুড়ি (মংগলবার), একদিন রাতে বিফ তেহারী/খাসির কাচ্চি (রবিবার), একদিন রাতে গরুর কালাভুনা (বৃহস্পতিবার), বাকি তিনদিন দুপুরে মুরগি রাতে বড় মাছ (ইলিশ/রুই)
    মেয়েদের হলে বিকালে চা/নাস্তা দেয়া হয়। খাবারের মেনু এবং টাইমিং মেস কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পরিবর্তনশীল৷ এছাড়া প্রায় প্রতি মাসেই রয়েছে হল ফেস্টের আয়োজন যেখানে আবাসিক অনাবাসিক সকল ছাত্র আমন্ত্রিত হয়

সবশেষে একটাই কথা,

শিক্ষার্থীদের অবশ্যই উচিত ভর্তি পরীক্ষাকে সর্বাধিক গুরুত্ব দেয়া। এজন্য বিগত বছরের MIST এডমিশন প্রশ্নব্যাংক এর উপর সর্বোচ্চ প্র‍্যাক্টিস থাকা জরুরি। এরজন্য অন্যতম সেরা একটি মাধ্যম হতে পারে চর্চা। ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিতে ইচ্ছুক সকল শিক্ষার্থীকে অগ্রীম শুভকামনা।

এবং আবার ও বলছি, ভয় পাওয়ার কিছুই নেই। কঠিন প্রতিজ্ঞা ও দৃঢ় মনোবল নিয়ে তোমরা এগিয়ে চল, জয় তোমাদের হবেই হবে, কারণ প্রচণ্ড বড় হবার ইচ্ছাই মানুষকে বড় করে তোলে। শুভ কামনা রইল।

সচারচর জিজ্ঞাসা

Get it on Google PlayDownload on the app store

© 2024 Chorcha. All rights reserved.